IndiaIndia
WorldWorld
Toll free number

1800 22 7979

Chat on WhatsApp

+91 88799 00414

Business hours

10am - 6pm

চলুন বালি যাই

19 mins. read

Published in the Sunday Anandabazar Patrika(ABP) on 07 July, 2024

সম্পূর্ণ ভিজে গেলেও এক অতুলনীয় আনন্দের অনুভূতিতে ভরপুর হয়ে, আমি চারপাশে তাকালাম আর দেখলাম আমার প্রিয়জনদের মুখেও সেই একই দীপ্তিময় হাসি প্রতিফলিত হচ্ছে। আমরা এখন আমাদের পারিবারিক ছুটি কাটাচ্ছি, কোথায় ? মোহনীয় দ্বীপ বালিতে! উবুদ থেকে  আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছিল, যেখানে আমরা আয়ুং নদীর উপর রাফটিং করেছিলাম।

একটি পারিবারিক ছুটির পরিকল্পনা করা বেশ চ্যালেঞ্জের ব্যাপার, এক্ষেত্রে প্রত্যেকের সময়সূচী এবং পছন্দগুলি একসুত্রে গাঁথার প্রয়োজন হয়। ভীণা ওয়ার্ল্ড টিমের হাতে এই কাজটি তুলে দিয়ে, আমরা পরিবারের প্রতিটি সদস্যের ইচ্ছা পূরণ করা প্ল্যান তৈরি করার ব্যাপারে তাদের বিশেষজ্ঞতার পরিচয় পেয়ে যারপরনাই খুশি হয়েছিলাম, যেখানে সবার জন্য ছিল উত্তেজনা এবং বিশ্রামের সঠিক মিশ্রণ।

বালির মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গে, উজ্জ্বল হাসি এবং প্রথাগত স্বাগত জানানোর মধ্যে দিয়ে আমাদের বরণ করা হয়েছিল। স্থানীয় মানুষদের মুখে ছড়িয়ে পড়া অনাবিল আনন্দ অবিলম্বে আমাদের বিমোহিত করেছিল, আমরা ভাবছিলাম কেন আমরা এই স্বর্গে আগে আসিনি। বালি যদি এখনও আপনার তালিকায় থাকে, তাহলে বলব যে এই বছরই ঘুরে আসুন—আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি আপনারও ঠিক একই অনুভূতি হবে! ভারত থেকে খুব দূরে নয়, বালির সংস্কৃতির সঙ্গে আমাদের সংস্কৃতির এক আকর্ষণীয় সাদৃশ্য আছে, যা ভারত থেকে এই ছবির মতো সুন্দর দ্বীপে যাত্রা করা হিন্দু ঐতিহ্যের একটি আভাস দেয়। ব্যবসায়ী, নাবিক, পণ্ডিত এবং পুরোহিতদের মাধ্যমে প্রথম শতাব্দীতে ইন্দোনেশিয়ায় হিন্দুধর্মের প্রবেশ ঘটে। কিন্তু বালি বেড়ানো মানে শুধুই পুরানো ঐতিহ্যের অনুসন্ধান নয় বরং এর কোনায় কোনায় ছড়িয়ে আছে রোমাঞ্চ।

বালিতে আপনার রোমাঞ্চকর ছুটি শুরু করার জন্য আয়ুং রিভার রাফটিং অভিযানের চেয়ে ভাল আর কী হতে পারে? ভেলায় ওঠার সঙ্গে সঙ্গে, দ্বীপের মধ্য দিয়ে স্পন্দিত ধমনীর মতো বয়ে চলা নদীটি, আমাদের প্রতিটি মুহুর্তকে এক দুঃসাহসিক বাঁকের সামনে উপস্থিত করছিল। প্রশিক্ষকের নির্দেশমতো আমরা হাসি এবং টিম ওয়ার্কের মধ্যে দিয়ে ঢেউগুলি সামলাতে সামলাতে এগিয়ে যাচ্ছিলাম। এটি কেবল একটি শারীরিক রোমাঞ্চ নয়; এটি আমাদের মধ্যে এক বন্ধন তৈরি করেছিল যা আমাদের একে অপরের কাছাকাছি নিয়ে এসেছিল। প্রবল স্রোতের মধ্যে, আমরা নদীর তীরে শোভিত সূক্ষ খোদাই করা কিছু স্থাপত্য দেখতে পেলাম, যা আসলে প্রাচীন বালির গল্প বলে— এবং খুব কাছ থেকে দেখার পরে বুঝতে পারলাম যে এখানে আসলে মহাকাব্য রামায়ণের গল্প বলা আছে! আমরা জানতে পারলাম যে রামায়ণ ইন্দোনেশিয়ার সংস্কৃতির এমন একটি অন্তর্নিহিত দিক যা তাদের নৈতিক এবং আধ্যাত্মিক নির্দেশনার একটি উৎস হিসাবে কাজ করে, সেইসঙ্গে নান্দনিক অভিব্যক্তিরও প্রকাশ ঘটায়।

আর বালি এই জীবন্ত কিংবদন্তির নিখুঁত মূর্ত প্রতীক। ভাস্কররা উবুদের আয়ুং নদীর তীরে পাথরের বুকে রামায়ণের গল্পকে অমর করে রেখেছেন, ভগবান বিষ্ণুর মানব অবতার (রাম), তাঁর বিয়ে, ১৪ বছরের নির্বাসন, রাক্ষস রাজা রাবণের দ্বারা সীতার অপহরণ এবং সীতাকে উদ্ধার করতে রাম রাবণের মহাকাব্যিক যুদ্ধকে স্পষ্টভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। র‌্যাফটিং অভিজ্ঞতা এমন এক অভিজ্ঞতা যা আমরা কখনই ভুলব না। আমাদের ছুটিটা একদম যথাযথ ভাবে শুরু হয়েছে বলা যেতে পারে। আমি নিজেকে এই ভাবনার থেকে সরাতে পারিনি যে, " একটা ভাল শুরু মানে অর্ধেক কাজ শেষ!"

উবুদকে বালির সাংস্কৃতিক নিউক্লিয়াস বলা হয়, এর প্রাণবন্ত শিল্প দৃশ্য এবং আধ্যাত্মিক পরিবেশ আমাদের মোহিত করে। রাজকীয় পুরী সরেন রয়্যাল প্যালেস থেকে শুরু করে শান্ত উবুদ মাঙ্কি ফরেস্ট পর্যন্ত, এর প্রতিটি কোনা রহস্য আর বিস্ময়ে মোড়া। বাজার এলাকা দিয়ে ঘুরে বেড়ানোর সময় এর প্রতিটি মন্দিরের গেট এবং উঠোন দেখে আমরা দ্বীপের আধ্যাত্মিক ঐতিহ্যের ঝলকে বালিনিজ সংস্কৃতির মধ্যে নিমজ্জিত হয়ে যাই। আমি যখন আমাদের ছুটির পরিকল্পনা করছিলাম, তখন আমার মনে একটা ছবিই খুব স্পষ্ট ছিল সেটা হল  বালির রাইস টেরাস বা ধান ছাদ।  সবুজে ভরা সুসজ্জিত রাইস টেরাস শুধু চোখকেই শান্তি দেয় না, মনকেও শান্ত করে। তাই, আমাদের পরবর্তী  গন্তব্য ছিল উবুডের বাইরে, সবুজ তেগাল্লালং রাইস টেরেস, যা বালির কৃষি ঐতিহ্যের প্রতীক এবং পোস্টকার্ডের ছবির মতো নিখুঁত যা মনকে শান্তি দেয়, এই অঞ্চলগুলি দেখার মাধ্যমে আমরা বালির কৃষি সংস্কৃতির সঙ্গে অতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়ছিলাম।

বালিনিজ সুইং -এ চড়ার অভিজ্ঞতা ছাড়া উবুদ ঘোরা কি সফল হতে পারে? বালি সুইং থেকে পুরো দ্বীপের সবুজ ল্যান্ডস্কেপের একটি এরিয়াল ভিউ দেখা যায় যা সত্যিই মনোমুগ্ধকর। এটি মধুচন্দ্রিমা করতে আসা এবং ছুটি কাটাতে আসা পর্যটকদের মধ্যে খুবই জনপ্রিয়, কিছু উদ্যমী বালিনিজ মানুষ পর্যটকদের লম্বা পোষাক অফার করে যাতে তারা সেই পোশাক পড়ে দোলনায় দোলার ছবি ইনস্টাগ্রামে দিতে পারে।

আমি সবসময় বিশ্বাস করি যে হেঁটে হেঁটে ঘুরলে সেই গন্তব্যের প্রকৃত সৌন্দর্য এবং সংস্কৃতির সাথে পরিচয় হয়। তাই, আসল বালিনিজ সংস্কৃতির আভাস পেতে আমরা স্থানীয় গাইডের সাথে হাঁটতে শুরু করলাম। বালির ল্যান্ডস্কেপ মন্দির দিয়ে ঘেরা, তা গ্র্যান্ড পাবলিক স্ট্রাকচার থেকে শুরু করে গ্রামের উপাসনালয় পর্যন্ত,  যা শারীরিক জগতকে আধ্যাত্মিক জগতের সাথে যুক্ত করে, এমনকি মৃতদের (পূর্বপুরুষদের) সাথে জীবিতদেরও। গণেশের মতো হিন্দু দেবতাদের মূর্তি দিয়ে সজ্জিত এই পবিত্র দরজাগুলি শুধুমাত্র অশুভ আত্মা থেকে রক্ষা করে না বরং এগুলি পরিবারের মর্যাদা এবং সম্পদেরও প্রতীক। এখানের দরজাগুলি স্ট্যাটাস সিম্বল হিসাবে কাজ করে, যা কম্পাউন্ডের মধ্যে বসবাসকারী পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা বা সামাজিক পদমর্যাদা সম্পর্কে সবাইকে ওয়াকিবহাল করে। দরজাগুলি পারিবারিক প্রাঙ্গণের প্রবেশদ্বার হিসাবে কাজ করে, এগুলোকে বলা হয় পাদুরাস্কা, পুরো দ্বীপে এই ধরনের প্রচুর প্রবেশদ্বার ছড়িয়ে থাকতে দেখতে পাবেন।

আমরা যখন বালির সমুদ্রতীরে অবস্থিত আমাদের হোটেলে পৌঁছোই, চারদিকে ছড়িয়ে থাকা গুঁড়ো নরম বালি আমাদের হাতছানি দিয়ে ডাকে আর আমরা একটা অসাধারণ সূর্যাস্তের ছবির জন্য রওনা হয়ে যাই। আমরা টানাহ লট টেম্পল পর্যন্ত হেঁটে পৌঁছই, যেখানে বালিনিজ সূর্যাস্তের অপার্থিব সৌন্দর্যের সাক্ষী হই। মন্দিরের উপরে সোনালি রঙ ছড়িয়ে সূর্য যখন দিগন্তের ওপারে অস্ত যাচ্ছিল, মনে হচ্ছিল সত্যিই একটা অপূর্ব দিনের সাক্ষী হয়ে থাকলাম আমরা।

বালিতে আমাদের প্রথম ভ্রমণ এক অবিস্মরণীয় অনুভব দিয়ে পূর্ণ ছিল, আর সবচেয়ে স্মরণীয় মুহূর্তগুলি ছিল সেইসব বিশেষ অভিজ্ঞতা যা আমরা একসাথে উপভোগ করেছি। প্রাইভেট ইয়ট ভাড়া করা মানে কোনো মাইলস্টোন জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী বা এইধরনের বিশেষ মুহুর্তগুলিকে  উদযাপন করা৷ একবার আমরা দুবাইতে ৫০ তম জন্মদিন উদযাপনের জন্য একটি ইয়ট বুক করেছিলাম এবং গ্রীসে গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে ঘুরতে যাবার জন্য ভাড়া করেছিলাম। সমুদ্রে ক্রুজ করার সেরা সময়গুলির মধ্যে অন্যতম হল সুর্যাস্ত দেখা।  প্রাইভেট ক্রুজ আপনাকে আপনার নিজস্ব গতিতে ক্রুজ করার এবং যেখানে খুশি সেখানে থামার সুযোগ দেয়। আমরা গিলি দ্বীপপুঞ্জ দেখার জন্য সারা দিন ক্রুজ নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম এবং ফেরার পথে সমুদ্রের মাঝখানে আকাশী নীল জলে ডুব দেওয়ার জন্য নৌকা থামিয়েছিলাম।

বালি অবশ্যই তার সুন্দর সমুদ্র সৈকতের জন্য বিখ্যাত আর ভীণা ওয়ার্ল্ডের ট্যুরে আপনি ট্যাঙ্গোয়িং জেনোয়া সমুদ্র সৈকতে প্রচুর ওয়াটার স্পোর্টস উপভোগ করতে পারেন। আপনি এক দিনের সফরে নুসা পেনিডা দ্বীপ ঘুরে আসতে পারেন।  স্পিডবোটে চেপে, আপনার প্রথম গন্তব্য হল কেলিংকিং বিচ, প্রবাল পাথর, বালি এবং স্ফটিক নীল জলে সজ্জিত এক মনোমুগ্ধকর সমুদ্র তট, এখানে আপনি পাবেন বিস্ময়কর টি-রেক্স ক্লিফ ভিউপয়েন্ট, একটি অনন্য আকৃতির ক্লিফ যাকে দেখতে চোয়াল খোলা বিশালাকার রক ডাইনোসরের মতো। এবার আমাদের পরের গন্তব্য হল অ্যাঞ্জেল'স  বিলাবং , যেখানে অনন্য লাইলস্টোন ফরমেশন সমুদ্রের দৃশ্যের পটভূমিতে একটি অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক শিলা উপহ্রদ তৈরি করে। এখানকার দৃশ্যগুলি মন্ত্রমুগ্ধকর যা প্রকৃতির শৈল্পিক দক্ষতার আভাস দেয়।

ফেরার দিন যত কাছাকাছি আসছিল, ততই আমরা বিশ্রামের প্রশান্তিময় মুহূর্তগুলিতে ডুবে যাচ্ছিলাম, বালিনিজ ম্যাসাজ আমাদের দেহ এবং মনকে পুনরুজ্জীবিত করে তুলেছিল। বালিতে, প্রতিটি ছুটি তার নিজস্ব গল্প বলে, আর আমাদের হল রোমাঞ্চ, আবিষ্কার এবং একতার গল্প।  আজ, যখন আমরা  আয়ুং নদী বা প্রাচীন মন্দিরের ফটকের সামনে কাটানো সময়ের কথা মনে করি, আমরা বালির সেই অন্তহীন সময়কেই বহন করে চলি - এমন একটি দ্বীপ যা চিরকাল আমাদের হৃদয়ে থেকে যাবে। বালি বছরের যেকোনো সময় সবার জন্য একটি আদর্শ বেড়ানোর জায়গা হতে পারে।


ওহ! আমি এটা জানতাম না...

Know the Unknown

আপনি যদি রূপকথার গল্প থেকে সরাসরি উঠে আসা একটি দেশ দেখতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভুটানে যেতে হবে। হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত এই ছোট্ট দেশটি তার অনন্য বৈশিষ্ট্যে ভরপুর। ভুটান হল বিশ্বের প্রথম দেশ যে 'জিডিপি' (গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্ট) এর পরিবর্তে 'গ্রস ন্যাশনাল হ্যাপিনেস' দ্বারা তার সমৃদ্ধির পরিমাপ করে। মাত্র পঁচিশ বছর আগে ভুটানে টেলিভিশন এসেছিল, এখানকার নাগরিকদের খুশি থাকার কারণ হয়ত এটাই।

ভুটানের ৬০% এরও বেশি জঙ্গলে ঘেরা, আর দূষণকারী শিল্পের উপর নিষেধাজ্ঞার কারণে এটি কার্বন নেগেটিভ দেশ। ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত বিদেশী পর্যটকদের ভুটানে প্রবেশ করতে দেওয়া হত না। এমনকি এখন, পর্যটকদের দেশের মধ্যে ভ্রমণ করতে গেলে একটি 'পরিবেশ কর' দিতে হয়। আর্চারি, যা সংস্কৃতে ‘ধনুর্বিদ্যা’ নামে পরিচিত, ভুটানের জাতীয় খেলা। যেহেতু ভুটানি মুদ্রা, 'এনগুলট্রাম' ভারতীয় টাকার সাথে যুক্ত, তাই আপনি ভারতীয় টাকা ব্যবহার করে ভুটানে কেনাকাটা করতে পারেন। মহারাষ্ট্রের এক দশমাংশ আয়তনের এই দেশটি নদীতে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র চালায় এবং উৎপাদিত বিদ্যুৎ ভারতকে বিক্রি করে। ভুটানের জাতীয় ভাষা 'জংখা', যা তিব্বতি ভাষা পরিবারের অন্তর্গত। এই ভাষাটি লেখার জন্য ব্যবহৃত লিপিকে বলা হয় ‘চোক’, ধ্রুপদী তিব্বতি লিপির অনুরূপ। বৌদ্ধ ধর্ম ভুটানে গভীরভাবে প্রোথিত, এবং নাগরিকদের অবশ্যই 'ড্রিগ্লাম নামজা' বা 'সুশৃঙ্খল আচরণের নিয়ম' অনুসরণ করতে হয়, যার মধ্যে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরা এবং ঐতিহ্যগত স্থাপত্য শৈলীতে বিভিন্ন ভবন নির্মাণ করা।

ভুটানে এখনও কোনো রেললাইন নেই, তবে ভারত সরকারের সহযোগিতায় ভারত-ভুটান রেললাইনের কাজ শুরু হয়েছে। ভুটানের জাতীয় বিমান সংস্থা 'ড্রুক এয়ার' একমাত্র এয়ারলাইন যা ভারত থেকে ভুটান যায়। ভুটানের সেনাবাহিনী শুধুমাত্র একটি স্থল বাহিনী নিয়ে গঠিত, কারণ এর কোনো নৌবাহিনী বা বিমানবাহিনী নেই। ভুটানের বিমান প্রতিরক্ষার দায়িত্ব ভারতের এছাড়াও, ভুটানি সেনাবাহিনীকেও প্রশিক্ষণ দেয়। ভুটান সংসদীয় গণতন্ত্র এবং একটি সাংবিধানিক রাজতন্ত্রের সমন্বয় দ্বারা শাসিত হয়। দীর্ঘ রাজকীয় শাসনের পর, ২০০৮  সালের নির্বাচনের মাধ্যমে ভুটান গণতান্ত্রিক যাত্রা শুরু করে।

আমাদের সুখী প্রতিবেশীকে দেখার সুযোগ হারাবেন না, যা তারা তাদের হিমালয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ঐতিহ্য এবং রীতিনীতিকে ভক্তি সহকারে লালন করে। ভীণা ওয়ার্ল্ড ভুটান ভ্রমণের অনেক অপশন অফার করে, তাই তারমধ্যে থেকে আপনার পছন্দসই একটি বেছে নিন এবং এই বছরই ভুটান ঘুরে আসুন।


ভীণা ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল মিশন

travelmission bengali

বিশ্বের সাতটি মহাদেশ ঘুরে দেখা একটি সারাজীবনের প্রয়াস বলা যেতে পারে। সাধারণত, ভ্রমণকারীরা তাদের নিজের মহাদেশ মানে এশিয়া থেকে তাদের যাত্রা শুরু করে। ভারত এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মনোমুগ্ধকর ল্যান্ডস্কেপগুলি দেখে নেওয়ার পরে, অনিবার্যভাবেই ইউরোপ হাতছানি দেয়। ইউরোপীয় স্বপ্ন পূরণের পরে, সমস্ত মনোযোগ এমন একটি গন্তব্যের দিকে চলে যায় যেটি একটি দেশ এবং মহাদেশ উভয়ই - অস্ট্রেলিয়া। এরপর উত্তর আমেরিকা, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, তখন ভ্রমণের আর একটি কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে। কিছু পর্যটক তাদের বাকেট লিস্টে এই চারটি মহাদেশকেই অন্তর্ভুক্ত করে নেয়। বাকি থাকে তিনটি মহাদেশ : আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা এবং অ্যান্টার্কটিকা।

বিশেষ করে আফ্রিকা, আমাদের খুব কাছে অবস্থিত হলেও, ভারতীয় ভ্রমণকারীদের দ্বারা কিছুটা উপেক্ষিত বলা যেতে পারে। যখনই কোনো  আফ্রিকান প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আমাদের দেখা হয়, তারা প্রায়শই একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উত্থাপন করে: "ইউরোপ এবং আমেরিকা থেকে লক্ষ লক্ষ পর্যটক আমাদের দেশে আসে। কীভাবে আমরা ভারতীয় পর্যটকদের কাছে আফ্রিকাকে একটি 'অবশ্যই দেখার' গন্তব্য হিসেবে তুলে ধরতে পারি?" তাদের প্রতি আমাদের প্রতিক্রিয়া অত্যন্ত সহজ: যারাই আফ্রিকা গেছে তারাই মুগ্ধ হয়ে ফিরে এসেছে, তারা প্রায়শই সেখানকার অসাধারণ সৌন্দর্য নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছে। আগে না যাবার জন্য আফসোসও  করেছে।  অতএব, সমস্ত আফ্রিকান দেশগুলিকে একত্রিত হয়ে আফ্রিকান পর্যটনের অগ্রগতি এবং পর্যটকদের জন্য তাদের অগণিত আকর্ষণগুলিকে  প্রদর্শন করে একটি ব্যাপক সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান চালু করা অবশ্য কর্তব্য। আমেরিকা এবং অস্ট্রেলিয়ার মতো আফ্রিকার প্রতিও ভারতীয়দের একইভাবে আকৃষ্ট হওয়া উচিত। যদিও আফ্রিকা মোটেও সস্তার জায়গা নয়, তবে এটি অত্যধিক ব্যয়বহুল হওয়ার আগে চলুন ঘুরে আসি।

আফ্রিকার পরে, রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার মোহনীয় আকর্ষণ এবং অ্যান্টার্কটিকার অতুলনীয় অনন্যতা। এই বছর, ভীণা ওয়ার্ল্ড অ্যান্টার্কটিকায় দুটি সফল অভিযান করেছে এবং একটি দক্ষিণ আমেরিকায়। সুতরাং, আসুন আমাদের ভ্রমণ মিশনের দিকে এবার অগ্রসর হই!

#VeenaWorldTravelMission


কি খাবো? কিভাবে খাবো?

kaybaikhau bengali

ভারতবর্ষের মতো একটি বিশাল দেশে, এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলের  ভাষা এবং খাবারের পরিবর্তন আশ্চর্যজনক নয়। কিন্তু ইউরোপের সুইজারল্যান্ডের মতো একটি ছোট দেশে, বিভিন্ন অঞ্চলের প্রচলিত ভাষা খাদ্য সংস্কৃতিকে এতটাই প্রভাবিত করে যে একটি খাবার দুটি ভাষাগত অঞ্চলের মধ্যে বৈচিত্র্যকে প্রতিফলিত করে। চিজ এবং চকোলেটের জন্য বিশ্ব বিখ্যাত সুইজারল্যান্ডের জাতীয় খাবার হল ‘রোস্টি’। এই খাবারটিকে মহারাষ্ট্রের সুস্বাদু খাবার 'বাতাত্যচা কিস'-এর সুইস সংস্করণ হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

রোস্টি তৈরি করতে, আধা সেদ্ধ বা কাঁচা আলু নিন, সেগুলিকে গ্রেট করুন এবং একটি প্যানে ওই কাটা আলু রান্না করুন। রান্না করার সময় মাখন বা চিজ ব্যবহার করুন, স্বাদমতো লবণ এবং মরিচ যোগ করুন এবং এটিকে মহারাষ্ট্রীয় ‘থালিপীঠ’-এর মতো আকৃতি দিন, যা এক ধরনের প্যানকেক। কখনও কখনও, রোস্টি প্যাটিসের আকারেও তৈরি করা হয়। প্রথাগত পদ্ধতিতে শুধুমাত্র আলু ব্যবহার করা হয়, কিন্তু পরবর্তীতে স্বাদে বৈচিত্র আনতে পেঁয়াজ, চিজ, বেকন, আপেল এবং হার্বসও দেওয়া হয়ে থাকে। মূলত, এই খাবারটি বার্ন প্রদেশের কৃষকদের প্রাতঃরাশের জন্য তৈরি করা হত। কিন্তু এখন, রোস্টি  সকালের জলখাবার থেকে রাতের খাবার পর্যন্ত যেকোনো খাবারে সাইড ডিশ হিসেবে পরিবেশন করা হয়। এটি প্রায়শই সার্ভেলাস (সুইস সসেজ) বা লেবারকেস (গরুর মাংস, শুয়োরের মাংস এবং বেকন থেকে তৈরি একটি রুটি) -এর সাথে খাওয়া হয়। যদিও এই খাবারটি জার্মান-ভাষী সুইস অঞ্চলে উদ্ভূত হয়েছিল, তবে এটি এখন সারা দেশে পাওয়া যায়।

একটি অনুরূপ শব্দ, 'রোস্টিগ্রাবেন', যার অর্থ 'রোস্টি উপত্যকা' সুইজারল্যান্ডে জার্মান-ভাষী এবং ফরাসি-ভাষী অঞ্চলগুলির মধ্যে ভৌগোলিক সীমানা বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়। ভীণা ওয়ার্ল্ডের সুইজারল্যান্ড সফরে রোস্টি উপভোগ করার সুযোগটি হারাবেন না। ভারত এবং সারা বিশ্বের বিভিন্ন খাদ্য ঐতিহ্য এবং ভ্রমণের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে শুনতে ভীণা ওয়ার্ল্ডের ‘ট্রাভেল এক্সপ্লোর সেলিব্রেট লাইফ’ পডকাস্ট অবশ্যই শুনবেন।

www.veenaworld.com/podcast


আমার স্বামী

আমার ট্যুর ম্যানেজার নয়

"চলো, চলো; আমাদের ড্রাইভার এতক্ষণে নিশ্চয়ই এসে গেছে। "... "হ্যালো, হ্যালো, আমি আশিস। আমি একটি গাড়ি বুক করেছিলাম, কিন্তু এখানে কোথাও খুঁজে পাচ্ছি না।"... " আমরা আজ কোথায় খাচ্ছি? কালকের জায়গাটা ভালো ছিল না।"... হ্যালো হ্যালো... আমার কথা কি কেউ শুনছে ?  আমাদের ফ্লাইট ক্যানসেল হয়ে গেছে, আমরা এখানে আটকে পড়েছি। হ্যালো হ্যালো... এ হোল আমাদের হানিমুন ট্যুরের কিছু ঝলক যেখানে আমার স্বামী না জেনে ট্যুর ম্যানেজারের ভূমিকা নিয়ে থাকে।  যতই যে যাই বলুক না কেন, এক ধরনের উদ্বেগ আমাদের সকলের মধ্যেই থাকে। এয়ারপোর্টে কি ড্রাইভার আসবে? আগামীকাল এগারোটায় আইফেল টাওয়ারের জন্য আমাদের রিজার্ভেশন আছে; আমাদের গাড়ি কি সময়মত পৌঁছবে? আমাদের পরবর্তী হোটেল যদি আমাদের রিজার্ভেশন দিতে না চায়? আমরা কি সময়মতো বিমানবন্দরে পৌঁছতে পারব? আমাদের ফ্লাইট বাতিল হলে কী হবে? এই ধরনের উদ্বেগের তালিকার কোনো শেষ নেই।

আরে ছাড়ুন তো! এটা আপনার হানিমুন, কোনো চাপ নেবেন না।  ভীণা ওয়ার্ল্ড আপনার পাশে আছে! ভীণা ওয়ার্ল্ড-এর কাছে দু ধরনের অভিজ্ঞতার অফার আছে: হানিমুন ট্যুর এবং কাস্টমাইজড হানিমুন হলিডে। দ্বিতীয়টি আবার দুই প্রকারের: রেডিমেড হলিডে প্যাকেজ এবং বিশ্বের যে কোনো জায়গায় আপনার নিজস্ব পছন্দ অনুযায়ী টেলর-মেড হলিডেজ। হানিমুন ট্যুরের ধারণা সম্পর্কে বৈধ প্রশ্ন থাকা সত্ত্বেও - হানিমুন কি একটি ব্যক্তিগত ব্যাপার নয়? —ভীণা ওয়ার্ল্ড গত এক দশক ধরে সফলভাবে এই ট্যুর আয়োজন করছে। হাজার হাজার মধুচন্দ্রিমাযাপনকারীরা ভীণা ওয়ার্ল্ডের এই অফারগুলি উপভোগ করেছে এবং তারা অত্যন্ত সন্তুষ্ট।

আজকের দিনের মধুচন্দ্রিমাযাপনকারীদের কাছে সময়ের খুবই অভাব, ফলত তাদের পক্ষে একটা বিস্তারিত প্ল্যান করা খুবই সমস্যার। ভীণা ওয়ার্ল্ড তাদের জন্য ভ্রমণ পরিকল্পনাকে সহজ করে দেয়: আপনার গন্তব্য ঠিক করুন, বুক করুন এবং তারপরে আরাম করে বসে থাকুন। বিয়ের প্রস্তুতির বিশৃঙ্খলার মাঝে এটি একটি স্বস্তি। তবে, হানিমুন ট্যুরগুলি যুক্তিসঙ্গত দামেরই হয়, যাতে অন্তর্ভূক্ত থাকে এয়ার ফেয়ার, হোটেল বুকিং, সাইটসিয়িং, খাবার খরচ, এমনকি ভিসা ফি এবং আন্তর্জাতিক গন্তব্যগুলির জন্য ভিসা আবেদন প্রক্রিয়াকরণও।

হানিমুন ট্যুরের দুটি মূল সুবিধা রয়েছে। প্রথমত, সহযাত্রী মধুচন্দ্রিমাযাপনকারীদের সঙ্গ একটি প্রাণবন্ত পরিবেশ তৈরি করে। সমবয়সীদের সাথে ভাগ করে নেওয়া অভিজ্ঞতা এবং ভবিষ্যতের প্রত্যাশা সহ বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। এটি একটি অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতার জন্ম দেয়, মজা করা এবং গেমস থেকে শুরু করে ক্যান্ডেল লাইট ডিনার পর্যন্ত বিভিন্ন আক্টিভিটি ট্যুরের পরিবেশকে আরো সুন্দর করে তোলে৷ দ্বিতীয়ত, ভীণা ওয়ার্ল্ড ট্যুর ম্যানেজার মধুচন্দ্রিমাযাপনকারীদের সাথে থাকার ফলে একটা নিরাপত্তার অনুভূতি যোগ হয়। এই অশান্ত বিশ্বে, আপনার পাশে একজন বিশ্বস্ত সহচর থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।  এর ফলে আপনি আপনার ভ্রমণ অভিজ্ঞতায় নিজেকে সম্পূর্ণরূপে নিমজ্জিত করার সুযোগ পান, যা শুধুমাত্র নিজের জন্যই নয়, বাড়িতে থাকা আপনার পরিবারের জন্যও উদ্বেগ দূর করে৷

তাহলে, চলুন, ব্যাগ গুছিয়ে ফেলুন, আর  ভীণা ওয়ার্ল্ডের সাথে দুঃসাহসিক অভিযানে বেরিয়ে পড়ুন।


মন, শরীর এবং আত্মা

ক্লান্তি, অবসাদ, গ্লানি, অবসন্নতা, বিষণ্নতা, উদ্বেগ... এই শব্দগুলো আজকাল প্রায়ই শোনা যায়। আমরা আমাদের দৈনন্দিন কথোপকথনে এগুলিকে এত ব্যাপকভাবে ব্যবহার করি যে এগুলি আমাদের স্থানীয় ভাষার একটি অংশ হয়ে উঠেছে বলে মনে হয়। এই ব্যাপক ব্যবহার আজকের দ্রুত-গতির কাজের জীবন, প্রতিযোগিতা, লক্ষ্য, কর্মক্ষমতার চাপ, লোভ এবং ইচ্ছার সম্মিলিত প্রভাবের টেস্টামেন্ট। তরুণ প্রজন্ম ক্রমবর্ধমানভাবে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ বা থেরাপিস্টের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে। যদিও "কর্ম-জীবনের ভারসাম্য" কথাটা খুব ক্লিশে শোনালেও, এটি আমাদের সময়ের কঠোর বাস্তব, একটি অপরিহার্য পরিস্থিতি। যারা এই ভারসাম্য রক্ষা করতে পারে তারা জীবন যুদ্ধে বিজয়ী হয়। অতএব, শরীর-মন ডিটক্স করা, স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করা, স্পিরিচুয়াল ওয়েলবিয়িং, এবং প্রকৃতির সাথে সংযোগের গুরুত্বকে মোটেও বাড়াবাড়ি বলা যায় না। আর ঠিক এখানেই ভীণা ওয়ার্ল্ড-এর কাস্টমাইজড হলিডেজের আগমন। আমরা ঠাট্টা করে বলি যে জীবন যখন ক্লান্তিকর হয়ে ওঠে, তখন জেগে ওঠার, বেরিয়ে পড়ার এবং ভ্রমণ করার আদর্শ সময়... আপনার চারপাশের দৃশ্যপট বদলে দিন, তা সে অল্প সময়ের জন্য হলেও। নিজেকে পুনরুজ্জীবিত করতে এবং পুনর্নবীকরণ এবং উৎসাহের সাথে ফিরে আসার জন্য, একটি বিরতি নিন, তা সে মিনিট, ঘন্টা বা দিন যাই হোক না কেন।

পুনরুজ্জীবন শুধু একটি ধারণা নয়; এটি একটি উদীয়মান ব্যবসা, যার সাথে আমরা গভীরভাবে জড়িত। পর্যটন মানেই এক ধরনের পুনরুজ্জীবন।   যাত্রা শুরু করার মধ্যে এক অনন্য রোমাঞ্চ আর ফিরে আসার পরে রয়েছে এক পরিপূর্ণ আনন্দ । যারা পরিবার এবং বন্ধুদের সাথে ব্যক্তিগত কাস্টমাইজড ছুটি বেছে নেয়, আমরা তাদের মনের চাহিদা অনুসারে ছুটির দিনগুলিকে সাজাই। আমাদের টিম, হলিডের সময় অতিথিদের চাহিদা মেটাতে ২৪ ঘন্টা উপস্থিত থাকে। আজকাল, যারা কাস্টমাইজড হলিডে বেছে নেয়  সেইসব পরিবার এবং বন্ধুদের ছোট বা বড় গ্রুপ, ভ্রমণ চলাকালীন তাদের সাথে একজন ট্যুর ম্যানেজারকে থাকার জন্য অনুরোধ করে। তাদের হলিডে প্ল্যান আমরা খুব যত্ন সহকারে করে দিই, যাতে তারা আরাম করে এবং কোনোরকম উদ্বেগ ছাড়াই হলিডে উপভোগ করতে পারে, আমাদের ট্যুর ম্যানেজার বাকি সবকিছু সামলে নেয়। এই কাস্টমাইজড প্যাকেজের মধ্যে ওয়েলনেস হলিডের চাহিদা বাড়ছে । এক্ষেত্রে আসল লক্ষ্য হল পুনরুজ্জীবন, তবে তা অবশ্যই একটি যুক্তিসঙ্গত বাজেটের মধ্যে।  যদিও অর্থের মূল্য অনস্বীকার্য। বিশ্বব্যাপী অসংখ্য চমৎকার ওয়েলনেস রিসর্ট রয়েছে, যার মধ্যে কয়েকটি ভারতেও  রয়েছে, যা আমাদের সংস্কৃতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বিশ্বের সেরা কিছু ওয়েলনেস রিট্রিটগুলির মধ্যে রয়েছে সুইজারল্যান্ডের চেনোট প্যালেস ওয়েগিস; থাইল্যান্ডের কো সামুই -এর কমলায়া; পর্তুগালের ভিল্লারা লংজিভিটি থ্যালাসা এবং মেডিকেল স্পা; মরক্কোর মারাকেশ-এর ম্যান্ডারিন ওরিয়েন্টাল; সুইজারল্যান্ডের জেনেভার ক্লিনিক লা প্রেইরি; নিউজিল্যান্ডের আরো হা; অস্ট্রিয়ার স্ট্যাঙ্গেলওয়ার্ট গ্রিন স্পা রিসর্ট , গ্রীসের ইউফোরিয়া রিট্রিট; ঋষিকেশের আনন্দ; এবং ইন্দোনেশিয়ার বালির সুখাবতী আয়ুর্বেদিক
রিট্রিট এবং স্পা।

আদর্শগতভাবে, কারুর এমন অবস্থায় পড়া উচিত নয় যেখানে অসুস্থতার কারণে তাদের ওয়েলনেস রিট্রিটের প্রয়োজন হয়। যাইহোক, অসুস্থতা প্রতিরোধ করার জন্য একটি স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা অবলম্বন করা অপরিহার্য, এবং ওয়েলনেস রিট্রিট এটি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। নিশ্চিন্ত থাকুন, ভীণা ওয়ার্ল্ড কাস্টমাইজড হলিডেজ বাকি সব কিছু সামলানোর জন্য প্রস্তুত। সুতরাং, চিন্তা করবেন না,আনন্দে মেতে উঠুন... হাকুনা মাতাতা!

July 06, 2024

Author

Sunila Patil
Sunila Patil

Sunila Patil, the founder and Chief Product Officer at Veena World, holds a master's degree in physiotherapy. She proudly served as India's first and only Aussie Specialist Ambassador, bringing her extensive expertise to the realm of travel. With a remarkable journey, she has explored all seven continents, including Antarctica, spanning over 80 countries. Here's sharing the best moments from her extensive travels. Through her insightful writing, she gives readers a fascinating look into her experiences.

More Blogs by Sunila Patil

Post your Comment

Please let us know your thoughts on this story by leaving a comment.

Looking for something?

Embark on an incredible journey with Veena World as we discover and share our extraordinary experiences.

Balloon
Arrow
Arrow

Request Call Back

Tell us a little about yourself and we will get back to you

+91

Our Offices

Coming Soon

Located across the country, ready to assist in planning & booking your perfect vacation.

Locate nearest Veena World

Listen to our Travel Stories

Veena World tour reviews

What are you waiting for? Chalo Bag Bharo Nikal Pado!

Scroll to Top